Neem Oil (নিমের তেল) (৫০মিলি)

Availability: In stock

Sku:

Be the first to review this product

Quick Overview

নিমের ফল থেকে সরাসরি নিম তেল সংগ্রহ করা হয় বলে এই তেলের বিশুদ্ধতা সম্পর্কে সন্দেহের অবকাশ নেই। তিক্ত স্বাদের এই উপাদানটি আপনার শরীরের অধিকাংশ সমস্যার স্থায়ী সমাধান দিয়ে থাকে।

Quantity

৳ 60.00

Browse Wishlist

১। ত্বকের যত্নে নিম তেল

 

নিম তেলের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ত্বকে সহজে বার্ধক্যের ছাপ পড়তে দেয় না।

নিম তেল ফ্যাটি এসিডে সমৃদ্ধ যার ফলে তেলটি সহজে ত্বকের সাথে মিশে যায় এবং সংকোচন-প্রসারণ সহজতর হয়।

নিয়মিত নিম তেল ব্যবহার করলে ত্বকের বলিরেখা ও বার্ধক্যজনিত যাবতীয় দাগ দূর করা সম্ভব।

নিম তেলে অ্যাসপিরিন জাতীয় উপাদান রয়েছে, যা ব্রণ হওয়ার জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়াগুলোকে ধ্বংস করে।

ত্বকের লাল ভাব ও ব্রণের ক্ষত থেকে ব্যথা হলে নিমের তেল তা সারিয়ে তোলে।

নিম তেল ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রেখে অ্যাকজিমা প্রতিকার ও প্রতিরোধ করে। তবে, বংশগত কারণে কারও অ্যাকজিমা হলে নিমের তেল তা পুরোপুরি সারিয়ে তুলতে সক্ষম নাও হতে পারে।

ত্বকের ছোট ছোট লালচে দাগ দূর করে।

ত্বকে অতিরিক্ত মেলানিন তৈরিতে বাধা দেয়।

 

 

২। চুলের যত্ন

 

চুলে ও মাথার ত্বকে নিয়মিত নিম তেল ব্যবহারের মাধ্যমে খুশকি থেকে দূরে থাকা সম্ভব।

আপনার ব্যবহার করা শ্যাম্পুতে কয়েক ফোঁটা নিমের তেল মিশান। এবার চুলে শ্যাম্পু মেখে ২-৩ মিনিট অপেক্ষা করুন। এভাবে আপনার উসকোখুসকো ও প্রাণহীন চুল তার উজ্জ্বল্য ফিরে পেতে পারে।

নিয়মিত নিম তেল ব্যবহারে উকুন তাড়ানো সম্ভব।

চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করে।

চুল ভাঙা রোধ করে।

 

 

৩। অন্যান্য

 

নিম তেল একটি উৎকৃষ্ট মানের অ্যান্টি-সেপটিক।

ডায়াবেটিস, আর্থ্রাইটিস ও উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসার জন্য যেসব ঔষধ গ্রহণ করা হয় সেগুলোতে নিমের তেল থাকে।

বাড়িতে পিঁপড়া, তেলাপোকা এবং অন্যান্য পোকামাকড়ের হাত থেকে রেহাই পেতে নিম তেল ব্যবহার করা যায়।

বাড়িতে মশার উপদ্রব থেকে বাঁচতে পানির সাথে নিমের তেল মিশিয়ে স্প্রে করা যেতে পারে।

ঘরের মেঝে জীবাণুমুক্ত রাখতে সাবান পানিতে নিম তেল মিশিয়ে মুছে নিন।

ছোট খাটো কাটা বা ক্ষত সারাতে নিম তেলের জুড়ি নেই।

নিম তেল একটি উত্তম প্রাকৃতিক জন্ম নিরোধক।

Brand

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “Neem Oil (নিমের তেল) (৫০মিলি)”

Top